পবিত্র বেদে শস্যাগার ও সেচ পাম্পের ব্যবহার সম্পর্কে শ্লোক। পড়ে অবাক হবেনই।

পবিত্র বেদে শস্যাগার ও সেচ পাম্পের ব্যবহার সম্পর্কে শ্লোক। পড়ুন অবাক হবেন।


কৃষিতে জলসেচ তথা ঘটিচক্রের ব্যবহার প্রথম বেদে পাওয়া যায় যা বর্তমানের পাওয়ার পাম্পের প্রাচীনরূপ। ঘটিচক্রের পরিধিতে অনেক ঘটি থাকে ঘূর্ণনের কারণে জলের মধ্যে নিমজ্জিত হয়ে জলপূর্ণ হয়ে তা পুনরায় উপরে জল ঢেলে দেয় ।


ওঁ বাবর্ত যেষোং রারা যুক্তৈষাং হিরণ্যয়ী।
নেমধিতা ন পৌংস্যা বৃথেব বিষ্টান্তা।।
(ঋগ্বেদ, ১০/৯৩/১৩)
অনুবাদ-
যেরূপ যুদ্ধের সৈন্যগণ বারবার অগ্রসর হয় অথবা ঘটিচক্র শ্রেণিবদ্ধ হয়ে অগ্রপশ্চাতভাবে উঠতে থাকে, আমার স্তবগুলিও সেরূপ।
লাঙ্গল ও জলসেচ ব্যবস্থা সে সমাজে এত পরিচিত সে সমাজকে আর যাই বলা হোক যাযাবর পশুপালক বলা সম্ভব নয়। কারণ এই সমাজই শস্য জমা রাখার পদ্ধতিও তৈরি করেছিল যা বর্তমানে হিমাগারের সাথে তুলনা করা চলে
ওঁ অধ্বর্যবো যো দিব্যস্য বশ্বো যঃ পার্থিবস্য ক্ষম্যস্য রাজা।
তমূর্দরং ন পৃণতা যবেনেন্দ্রং সোমেভিস্তদপো বো অস্তু।।
(ঋগ্বেদ, ২/১৪/১১)
অনুবাদ-
হে অধ্বর্যুগণ! ইন্দ্র স্বর্গীয় ও অন্তরীক্ষস্থ এবং পৃথিবীস্থ ধনের রাজা যবদ্বারা যেরূপ শস্য রাখবার স্থান পূর্ণ করে, ইন্দ্রকে সোম দ্বারা সেরূপ পূর্ণ কর।
প্রচারে- সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ

Previous Post
Next Post
Related Posts